Advertising
hemel
Advertising
hemel

কুমিল্লা জিরা চাষ পরিদর্শনে কৃষি সম্প্রসারণ অদিধপ্তরের মহা পরিচালক

শরীফ আহমেদ মজুমদার, কুমিল্লা প্রতিনিধিঃ কৃষি মন্ত্রির মন্ত্রীর নির্দেশে হোমনায় পরিক্ষামূলক জিরা চাষ পরিদর্শনে কৃষি সম্প্রসারণ অদিধপ্তরের মহা পরিচালক কুমিল্লার হোমনায় মশলা জাতীয় শস্য পরিক্ষামূলক জিরা চাষ পরিদর্শন করলেন কৃষি সম্প্রাসারন অধিদপ্তরের মহা পরিচালকসহ কর্মকর্তাগণ। গতকাল শুক্রবার বিকালে উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের জিরা ক্ষেতের পাশে খোলা মাঠে এ উপলক্ষে এক কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে কুমিল্লা কৃষি স্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক যুগল পদ দে’র সভাপতিত্বে  প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, খামার বাড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অদিধপ্তরের মহা পরিচালক কৃষি বিদ মনজুরুল হান্নান। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জুলফিকার আলীর পরিচালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, খামার বাড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অদিধপ্তরের সরেজমিন উইংএর পরিচালক কৃষি বিদ চৈতন্য কুমার দাস, হর্টিকালচার উইং এর পরিচালক কুদরত-ই-গণি, হোমনা কৃষি ইন্সটিটিউটের প্রিন্সিপাল দিলরুবা আক্তার, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এড. মো. আজিজুর রহমান মোল্লা,

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শেফালী বেগম, ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলা কৃষি উপ পরিচালক আবু নাসের ও জিরা চাষী আলমগীর মিয়া। এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কৃষি সম্প্রসারণ অদিধপ্তর হেডকোয়ার্টারের উপ পরিচালক অঞ্জন বড়–য়া, জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা ড. শাহিনুল ইসলাম, উপ পরিচালক (পিপি) জয়নুল আবেদীন, হোমনা উপজেলা এটিআই চীফ ইন্সট্রাক্টর ড. আব্দুল মান্নান, মেতা. শামসুর রহমান, মো. মর্তুজ আলী প্রমূখ।

সমাবেশে জিরা চাষে কৃষক আলমগীরের উৎসাহ উদ্দিপনার কথা তুলে ধরে অন্যান্য কৃষককেও এতে উদ্বুদ্ধ করতে গিয়ে বক্তারা বলেন, অপার সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। বাংলাদেশের আবহাওয়া সকল ফসল ফলানোই সম্ভব। বিশেষ করে এই অঞ্চলে জিরা চাষে যে সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে তাতে অত্যন্ত মূল্যবান ও বিদেশী মশলার ওপর থেকে নির্ভরশীলতা অনেক কমিয়ে আনতে সক্ষম হবে যদি সঠিক জিরা হিসেবে এই ফসলটি উৎপন্ন হয়। কৃষিতেও ঘটবে বিপ্লব। বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। কেবল কৃষকের ফলানো সোনার ফসলের কারণেই। গত আট বছর পূর্বেও এদেশের মানুষ খাদ্যাভাবে কষ্ট পেয়েছে।

উল্লেখ্য, সৌদি প্রবাস ফেরত যুবক আবুল হোসেন তার ইরানের এক বন্ধুর কাছ থেকে আধাকেজি পরিমান ইরানি জিরার বীজ আনেন। তা থেকে তার বড় ভাই কৃষক আলমগীর মিয়া মাত্র দুই শ’গ্রাম বীজ তার ৯শতাংশ জমিতে অগ্রহায়নের দিকে বপন করেন। একের উদ্যোগ দশের দিশা, কুমিল্লায় জিরা চাষের পথিকৃৎ আলমগীর” শিরোনামে  সংবাদ প্রকাশ হয়। গতকাল শুক্রবার জিরাক্ষেত পরিদর্শনে এসে প্রধান তার বক্তব্যে বলেন, সংবাদে খবর প্রকাশ হলে মাননীয় কৃষি মন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধূরীর নিদের্শে জিরা চাষ পরিদর্শনে আসেন।

Related posts