Advertising
Advertising

৪ বছর চুটিয়ে প্রেম করে বিয়েতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকের মুখে এসিড নিক্ষেপ করেছে প্রেমিকা!

খবরের শিরোনামে প্রতিনিয়ত আমরা এসিড নিক্ষেপের ঘটনা শুনে থাকি। কিন্তু এসব খবরে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পুরুষদের ছোঁড়া এসিড সন্ত্রাসের শিকার হয়ে ঝলসে যায় মেয়েরা। কিন্তু এবার ঘটলো এর বিপরীতটাই। কোন পুরুষের হাতে নয় এবার এক মেয়ের হাতেই এসিড নিক্ষেপের ঘটলা ঘটেছে। আর যদি শুনেন নিজের সাবেক প্রেমিকের মুখে এসিড নিক্ষেপ করেছে তারই প্রেমিকা। তাহলে কেমন মনে হবে আপনার কাছে এই বিষয়টা। সম্প্রতি ভারতের ব্যাঙ্গালোরে সাবেক প্রেমিককে অ্যাসিড নিক্ষেপের অভিযোগে এক যুবতীকে আটক করেছে পুলিশ। এসিডে দগ্ধ হয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে যাওয়া ঐ যুবক সম্প্রতি মেয়েটির সঙ্গে তার ৪ বছর ধরে চলা সম্পর্কের সমাপ্তি ঘটিয়েছে।

বিবিসি বাংলার এক খবরে বলা হয়েছে, অ্যাসিডে দগ্ধ ব্যক্তি সম্প্রতি মেয়েটির সঙ্গে তার চার বছর ধরে চলা সম্পর্কের ইতি টেনেছিলেন। এই ঘটনায় শহরের পুলিশ জানিয়েছে, ‘এটাই কোনো পুরুষকে নারীর দ্বারা অ্যাসিড ছোড়ার প্রথম ঘটনা। সব ক্ষেত্রেই দেখা যায়, মেয়েরা পুরুষদের ছোড়া অ্যাসিড সন্ত্রাসের শিকার হন। আমাদের গত ১২ বছরের রেকর্ড অনুসারে এমন কোনো অভিযোগ নেই যেখানে কোনো মেয়ে একজন পুরুষকে অ্যাসিড নিক্ষেপ করেছে’- এমনটাই বলেছেন ব্যাঙ্গালোর পুলিশের ডেপুটি কমিশনার এমএন আনুচেথ। খবর বিবিসি বাংলার।

এসিডে জয়াকুমার পুরুষোত্তম নামে ৩২ বছর বয়সী ওই যুবকের মুখের ডানপার্শ্বের কিছু অংশ, চোখ, গাল এবং কপালের কিছু অংশ ঝলসে যায়। তবে তার চোখ নষ্ট হয়নি, জানিয়েছে পুলিশের এক কর্মকর্তা। পুরুষোত্তম পুলিশকে বলেন, তার বান্ধবী লিডিয়া ইয়েশপাউল একজন নার্স হিসেবে কাজ করতেন। মিজ ইয়েশপাউল তাকে বিয়ে করতে চাইতেন। তবে মিস্টার পুরুষোত্তমের বাবা-মা এই সম্পর্ক মানতে রাজি হননি। কারণ তাদের দুজনের ধর্ম ভিন্ন। একজন খ্রিস্টান এবং আরেকজন হিন্দু সম্প্রদায়ের।

তিনি আরো জানান, ৩ মাস আগে এই সম্পর্ক শেষ করে দিয়ে তিনি বিয়ের জন্য নতুন কাউকে খুঁজছিলেন। কাজ শেষে সে বাড়ি ফেরার সময় রাস্তায় এই এসিড হামলার ঘটনাটি ঘটে এবং লোকজন তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। এর পরপরই মিজ ইয়েশপাউল আটক হন। তার বিরুদ্ধে হত্যা-চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে এবং বুধবার আদালতে হাজির করার পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১৪ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

Related posts