Advertising
hemel
Advertising
hemel

সুন্দর ঠোঁট সবার কাম্য; এই শীতে, যত্ন নিন আপনার ঠোঁটের

ব্যক্তিত্ব প্রকাশের অন্যতম উপায়ও বলা যেতে পারে এটিকে। কিন্তু ঠোঁটের সৌন্দর্য নষ্ট হলে বিড়ম্বনাও কিছু কম নয়। ঠোঁটের সবচেয়ে বড় শত্রু শীতের আর্দ্রতা। অথচ কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করেই শীত থেকে রক্ষা করতে আপনার ঠোঁটকে; করতে পারেন সুন্দর, আকর্ষণীয়। নিচে আপনাদের প্রয়োজনে এমন কিছু ঘরোয়া পদ্ধতিকে তুলে ধরা হলো—

১. লিপস্টিক লাগানোর আগে ঠোঁটে অল্প করে সান স্ক্রিন লাগিয়ে নিন। দিনে একবার ঠোঁটে দুধের সর লাগান।
২. সারাদিনে তিন-চারবার করে কয়েক ফোঁটা গোলাপ জল ও সামান্য মধু মিশিয়ে মিশ্রণটি ঠোঁটে লাগান।
৩. রাতে শোবার আগে আমন্ড অয়েল মাখিয়ে রাখুন।
৪. সপ্তাহে একবার আধা চামচ চিনি ও কোল্ড ক্রিম একসঙ্গে মিশিয়ে ঠোঁটে মাখিয়ে রাখুন।
৫. প্রতিদিন ক্লিনজিং মিল্ক দিয়ে ঠোট পরিষ্কার করুন।
৬. মাঝে মধ্যে ব্রাশ দিয়ে ঠোটটা ব্রাশ করে নিবেন। এতে মরা কোষ মরে যায়।
৭. সূর্যের অতি বেগুনী রশ্মীর হাত থেকে বাচতে রোদে বেরোবার আগে এসপিএফ
৮. যুক্ত লিপ বাম বা নারকেল তেল লাগিয়ে তার উপর লিপস্টিক লাগাবেন।
৯ রাতে শোয়ার আগে অবশ্যই ক্রিম বা ভেজা তুলোর সাহায্যে লিপস্টিক তুলে ফেলে ভেসলিন লাগিয়ে শোবেন।
১০. ভিটামিন সি’র অভাবে ঠোটের কোনা ফেটে যায়। এর জন্য ভিটামিন সি যুক্ত খাবার খান ও চিকিত্সকের পরামর্শ নিন।
১১. ঠোঁটের মসৃণতা বজায় রাখতে -ঠোটের মসৃণতা বজায় রাখতে স্ট্রবেরির ক্বাথ, মধু ও দুধের সর মিশিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন। মিনিট ২০ পর ধুয়ে ফেলুন।
১২. ঠোটের কোমলতা বজায় রাখতে প্রতিদিন অলিভ অয়েল,মধু ও গোলাপজল মিশিয়ে ঠোটে লাগিয়েরাখুন। মিনিট ১০ পর আলতো ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন।

ঘরোয়া পদ্ধতিতে উপায়ে এগুলো রোজ মেনে চললে ঠোঁটের কালচে ভাব তো দূর হবে। তার সঙ্গে ঠোঁট হবে নরম। আপনাকে করে তুলবে লাস্যময়ী। কিন্তু এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ কথা হলো, কমদামি লিপস্টিক একদম নয়, দামি ব্রান্ডেড লিপস্টিকব্যবহার করুন। সুন্দর ঠোঁট আপনার মুখে এক অন্য মাত্রা এনে দিতে পারে। ঠোঁটই আপনার চেহারার সৌন্দর্যের প্রতিক! তাই নিয়মিত ঠোটের যত্ন নিন।

Related posts