Advertising
hemel
Advertising
hemel

চট্টগ্রামের জামাই ময়েন আলির কাছে মাত্র ২২০ রানে মুখ থুবরে পড়েছে বাংলাদেশ

দ্বিতীয় উইকেটে দারুণ জুটির পর হঠাৎ ছন্দপতন বাংলাদেশের। মনে হয় ফিরেও আবার ফিরে গেলো  সেই চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে। ঐ  ইনিংসে ২৭ রানে শেষ ৬ উইকেট হারানো বাংলাদেশ আজও  তামিমের বিদায়ের পর ৩১ রান তুলতেই হারিয়েছে ৫টি  উইকেট। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে  প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিদায় নেন ইমরুল কায়েস। ব্যক্তিগত ১ রান করে ক্রিস ওকসের বলে বেন ডাকেটের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন ইমরুল কায়েস।

এরপর মুমিনুলকে নিয়ে দলের হাল ধরেন তামিম ইকবাল। ২০ বলে প্রথম রানের দেখা পাওয়া তামিম  ইকবাল ৬০ বলে তুলে নেন নিজের অর্ধশত রান। আর ১৩৯ বলে ১২ চারের সাহায্যে  ক্যারিয়ারের অষ্টম শতকের দেখা পায়। শেষ পর্যন্ত ১৪৭ বলে ১০৪ রান সংগ্রহ করে মঈন আলীর বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে বিদায় নেন তামিম ইকবাল। তামিমের বিদায়ের  কিছু পর দ্রুত বিদায় নেন মুমিনুল এবং মাহমুদউল্লাহ। মইন আলির ফুল লেংথ বল পিছিয়ে খেলতে গিয়ে ব্যক্তিগত ৬৬ রান করেই বোল্ড হয়ে ফিরে যায় মুমিনুল হক।

আর বেন স্টোকসের অফ স্টাম্পের বাহিরের বলে খোঁচা মেরে স্লিপে অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুকের হাতে ক্যাচ দেয় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (২৬ বলে ১৩)। স্টোকসের পর আবার বাংলাদেশে আঘাত হানেন মঈন আলি। বাংলাদেশের  অধিনায়ক মুশফিককে (৪) কুকের তালুবন্দি করান এই অফস্পিনার। এরপর বেন স্টোকসের বলে খোঁচা মেরে উইকেটরক্ষককে ক্যাচ দেন কোন রান না করা সাব্বির রহমান।

সাব্বিরের বিদায়ের পর খুব বেশি সময় উইকেটে থাকতে পারলেন না শুভাগত হুম। ব্যক্তিগত ৬ রান করে ক্রিস ওকসের বলে আউট হয়ে যায়।শুভাগত হুমের পর মাত্র ১ রান করে মেহেদী হাসান মিরাজও বিদায় নেন। মিরাজের পর অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ১০ রান করে আউট হয়। সাকিবের পর কামরুল হাসান কোন রান না করেই ময়েন আলির শিকার হলে মাত্র ১২০ রানেই বাংলাদেশের ইংনিসে ধস নামান ইংল্যান্ড। ইংল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ ৫ উইকেট নেন ময়েন আলি, ক্রিস ওকস ৩ এবং বেন স্টোকস নেন ২ টি উইকেট। বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান করেন তামিম ইকবাল ১০৪ এবং মুমিনুল করেন ৬৬ রান।

Related posts