Advertising
hemel
Advertising
hemel

ম্যাচ ভেন্যুতে অনুশীলনের জায়গা হলনা মাশরাফি বাহিনীর।

ম্যাচ ভেন্যুতে অনুশীলনের জায়গা হলনা মাশরাফি বাহিনীর।

দেখে নয় শুনে হয়তো আপনি অবাক হতে পারেন। ম্যাচের আগের দিন ম্যাচ ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত অনুশীলনে সুযোগ পায়নি টাইগাররা। পেয়েছে জিম্বাবুয়েনরা। ওরা খুটিয়ে খুটিয়ে দেখেছে সেন্টার উইকেট। মাশরাফির দলের জায়গা হয়েছে ঢাকার বাহিরে ফতুল্লায়। বিপত্তির অন্ত নাই সেখানেও। অনুশীলনের মাঝপথে আগুনে পুড়ে বন্ধ এক নম্বর ফ্রাট বাতি। এই বিপত্তিকে অতিরিক্ত মেহমানদারীর ফল নাকি অন্য কোন কৌশল সে সম্পর্কে কিছুটা অন্ধকারেই টাইগারদের অধিনায়ক মাশরাফি।

মাশরাফি বলেন, আমি ঠিক ক্লিয়ার না। তবে আমার মনে হয় ওদেরও লাইট প্রাকটিসের দরকার আমাদেরও দরকার। আমরা সেখানে সবসময় প্রাকটিস করি। ঝুকি ঝামেলা নিয়ে বেশী মাথা ব্যাথা নেই মাশরাফির। যেমন নাই হোয়াইট ওয়াশের চিন্তায়। যে কাপটা উচিয়ে ধরলেন মাশরাফি আর চিগুম্বুরা সে কাপটি বাংলায় রেখে দেওয়ার জন্যই দুর্দান্ত শুরুর পরিকল্পনা মাশরাফির। বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা বলেন, আমাদের স্টেইন বাদ দিয়ে আমরা খেলতে চাইব না এবং এটা আমরা করবও না । আমাদের খেয়াল রাখতে হবে তারা আমাদের কোন স্টাইলের বোলারদের কাছে দুর্বল।
তবে বাংলার মাটিতে টাইগারদের হারানো সোজা কথা নয়। সেটি ভালো করেই জানা জিম্বাবুয়েন অধিনায়কের। তবে একেবারেই বিনা বাধায় বাংলা ছাড়তে চাননা এল্টন চিগাম্বুরা। দলের কম্বিনেশন নিয়ে এল্টন চিগাম্বুরার পারিকল্পনা জানা যায়নি।
তবে আভাশ পাওয়া গেছে সারাশী স্প্রিন আক্রমন দিয়েই জিম্বাবুয়েনদের ঘায়েল করতে চান টাইগারদের টিম ম্যানেজমেন্ট।
বিশ্বক্রিকেটের সাম্প্রতিক সময়ে জিম্বাবুয়ের নাজুক অবস্থান সবারই জানা। তবে সবশেষ আফগানিস্থানের সাথে সিরিজ হেরে লজ্জার চুড়ান্ত সীমায় পৌছে দলটি। সেখান থেকে বাউন্সব্যাক করার লক্ষ্যে আবার এসেছে ক্ষুধার্থ বাঘের সামনে। চুড়ান্ত লজ্জা এড়ানো হয়তো সম্ভব কিন্তু ক্ষুধার্থ বাঘের সামনে থেকে বেঁচে ফেরা কি সম্ভব? এমন প্রশ্নই তুলেছেন টাইগার ভক্তরা।

Related posts