Advertising
Advertising

ক্রিকেট বোর্ড থেকে ঋণ করে’ বিয়ে করেছি-মাশরাফি

২০০১ সালে  মাশরাফি বিন মর্তুজা অভিষেক হলেও ইনজুরির সুবাদে শতশত বার মাশরাফিকে চলে যেতে হয়েছে দলের বাইরে। ফেরার জন্য লড়াই চালাতে হয়েছে মাশরাফিকে। আর বলাই বাহুল্য যে, মাশরাফি সেই সবগুলো লড়াই থেকে ফিরেছেন বিজয়ীর বেশে। বারবার দল থেকে বাইরে থাকার কারণে, বছর দুয়েক আগেও মাশরাফিকে ঘিরে কর্পোরেট দুনিয়ার আগ্রহটা আজকের মত ছিল না।

অধিনায়কত্ব ফিরে পাওয়া আর দলের পারফরম্যান্স মিলিয়ে মাশরাফি নিজেই এখন বড় এক ‘ব্র্যান্ড’। মাশরাফির কিন্তু সোজাসাপ্টা জবাব, ‘যদি অর্থ-খ্যাতির কথা বলে, তাহলে হ্যাঁ গত দুটি বছর স্বপ্নের মতো কাটেছে আমার। বিষয়টা আমি এভাবে দেখি না। আমি জীবনে কি পাব কি পাব না, এভাবে কখনো ভাবিনি।  শুধু আমি নিজের কাজ করে গিয়েছি। একের পর এক ইনজুরিতে পড়ে একা আমি  লড়াই করে গিয়েছি।

আমি বিয়ে করেছি ক্রিকেট বোর্ড থেকে ঋণ করে। এমন অনেক গল্প আছে, সেগুলো আর বলতে চাই না আমি। শুধু আমি জানি সব সময় নিজের কাছে সৎ থাকতে চেয়েছি। সেই কারণে সৃষ্টিকর্তা এখন আমাকে দুহাত ভরে দিচ্ছে। কোনো একদিন এত কিছু পাব ভেবে তো আর এভাবে চলিনি।

আর সাদামাটা জীবনযাপনের কৃতীত্বটাও দিলো মাশরাফি নিজের পরিবারকে, ‘আমি আমার পরিবারের কাছ থেকে শিখেছি  সৎ ভাবে জীবনযাপন করতে। আজকে আমার স্ত্রী-সন্তান আছে, ওরাই আমার কাছে সবচেয়ে  গুরুত্বপূর্ণ। তবু খবরটা পেয়ে প্রথম ফোনটা আম্মাকে করেছি, কারণ আমরা যে মাশরাফিকে চিনি তাকে তৈরি করেছে তার মা।

Related posts