Advertising
hemel
Advertising
hemel

ব্যক্তিগত অর্জনে উজ্জ্বল মিরাজ-শান্ত

ফেবারিট হিসেবে টুর্নামেন্ট শুরু করেছিল বাংলাদেশ। তবে প্রত্যাশার বাড়তি চাপ শেষ পর্যন্ত জয় করতে পারেনি মেহেদী হাসান মিরাজের দল। সাফল্যও কম না। ২০০৬ সালে মুশফিকুর রহিমের দল যা পারেনি ৩য় হয়ে মিরাজের বাংলাদেশ ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে পথ দেখিয়েছে। ব্যক্তিগত সাফল্যে উজ্জ্বল ছিলেন নাজমুল, শান্ত ও মিরাজ।

কটল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে পাকিস্তানের সামি আসলামের ১৬৯৫ রান টপকে যুব ওয়ান্ডেতে সর্বোচ্চ রানের নতুন মালিক হয়ে যান শান্ত। নামিবিয়ার বিপক্ষে আরেক ম্যাচে রেকর্ডের নাম রাখেন মেহেদী হাসান মিরাজ।পাকিস্তানের ইমাদ ওয়াসিমের ৭৩ উইকেট ছাড়িয়ে যুব ওয়ান্ডেতে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী হলেন মিরাজ।

টুর্নামেন্ট সেরাদের সেরা হওয়ার লড়াইয়ে কম জাননি শান্ত ও মিরাজ ।৬ ম্যাচে এক সেঞ্চুরি ও এক হাফ সেঞ্চুরিতে ২৫৯ রান করে সর্বোচ্চ রানের তালিকায় দশম স্থানে শান্ত। ৬ ম্যাচে ২৪২ রান করে ১২ নম্বরে জায়গা করে নেয় মিরাজ। এরমধ্যে আছে টানা ৪ ফিফটি।

১২ উইকেট নিয়ে ৭নম্বরে থেকে টুর্নামেন্টে সেরা পুরষ্কার হাতছানি দিচ্ছে মিরাজকে। তাদের মাঝে ভবিষ্যতে সাকিব, মুশফিক ও তামিমকে দেখবে ক্রিকেট বিশ্ব। মিরাজ শান্তরাও প্রস্তুত ১৬ কোটি বাংলাদেশিকে প্রতিনিধি করতে।

 

Related posts